00

ওয়েব সিরিজঃ- শাটিকাপ

এটা কি ছিলো?😱মানে এটা কি ছিলো? মামুর বেটারা জাস্ট ফাট্টায় দিছে।

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: নিঃসন্দেহে এটা 18+Content
তবে নেই কোনো যৌনতা, নেই সুরসুরি দেওয়ার মতো কোনো সীন। কিন্তু আছে প্রচুর গালি, মাদকের প্রসঙ্গ। এটা সপরিবার দেখার মতো নয়, ব্যক্তির একক দর্শনের বস্তু ‘শাটিকাপ’। এক সিরিজে যত গালি, নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকী তাঁর পুরো ক্যারিয়ারে এত গালি দেননি😆আর গালির ক্রিয়েটিভ প্রয়োগ, যেটা রাজশাহীর লোকের সহজাত, সেটা কেউ যদি শিখতে চান, তার জন্যও সিরিজটা টিউটোরিয়াল হবে। একটু মজা করলাম আরকি। আচ্ছা যাই হোক এখন মূল আলোচনায় আসি।

বছরের শুরুতেই দেশি কোনো ওয়েব সিরিজ দেখে এতোটা বিমোহিত হলাম। বলছি ১৯/০১/২০২২
এ চরকিতে মুক্তি পাওয়া শাটিকাপ এর কথা।

রাজশাহীর আঞ্চলিক ভাষায় এই ওয়েব সিরিজটি মুক্তি পেয়েছে। Accent একটুও এদিক সেদিক করা হয়নি। শটিকাপ পরিচালনা করেছেন মোহাম্মদ তাওকীর ইসলাম।
রাজশাহীর একঝাঁক তরুণ অভিনয়শিল্পীর অভিনয় যেন প্রাণ দিয়েছে সিরিজটিকে।

সময়োপযোগী গল্প, সাবলীল অভিনয়, গল্প বলার ধরন, ক্যামেরাশৈলী, চরিত্রায়ণ এসব কিছু এটাকে অন্য একটা লেবেলে নিয়ে গিয়েছে। যার জন্যে তাওকীর ইসলামকে যতোই ধন্যবাদ দেওয়া হবে,তা পর্যাপ্ত হবেনা।

এটিতে রয়েছে দুর্দান্ত থ্রিলার, তবে দুয়েকবার পিস্তল দেখা গেলেও ‍তা থেকে গুলি বের হয়নি🤭
সীমান্তে চোরাচালান, মাদক, ক্রসফায়ার—সব প্রসঙ্গ আছে…বড় ডিলারের আদেশে খুচরা ডিলারকে তাড়া করে ফেরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী ও মাদক নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী। আর তাড়া খেয়ে ‘শাটিকাপে’ নিজেকে বাঁচাতে আমরণ চেষ্টা খুচরা তরুনদের।

ছোট শহরের খুচরা মানুষদের অথেনটিক, এবং বাস্তবস্বরূপ জীবনের গল্প। কেন্দ্রের পুনরাবৃত্তিমূলক গল্প দেখতে দেখতে ক্লান্ত? সীমান্ত শহরের ভিন্ন মানুষের, ভিন্ন অ্যাকসেন্টের, ভিন্ন বাস্তবতার কাহিনি শোনায় ‘শাটিকাপ’। কোনো চেনা তারকা নেই, নেই মানে একেবারেই নেই।

রাজশাহীর গল্প, রাজশাহীর নির্মাতা, রাজশাহীর কলাকুশলী। তবে সিরিজে নিজের শক্তিটা যেকোনো দর্শক টের পাবেন। বাড়তি শক্তি এই যে ঢাকাকেন্দ্রিক অডিও ভিজ্যুয়াল কনটেন্ট তৈরির যে চর্চা, শিক্ষণ-নির্মাণ-পরিবেশনের যে চেনা নেটওয়ার্ক, তাঁকে চ্যালেঞ্জ জানায় এই সিরিজ, এমনকি নন্দনতত্ত্বের জায়গাতেও।

কাহিনি ছাড়াও আবহ সংগীত ও কয়েকটি র‌্যাপ এই সিরিজের অন্যতম শক্তির দিক। আর পদ্মার চরের টপ-অ্যাঙ্গেল কিংবা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল শটগুলো চোখে লেগে আছে।

★শাটিকাপ নিয়ে মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর কিছু অভিমত।

কনগ্র্যাচুলেশনস টিম ‘শাটিকাপ’! আমি সব সময়ই সেই তারুণ্যের গান গাই, যে সীমাবদ্ধতার কথা বলে না, বরং নিজের সীমানার ভেতরে কী কী সম্ভব, সেটা করে দেখতে চায়। তোমাদের স্পর্ধাকে স্বাগত!

★অমিতাভ রেজা চৌধুরী বলেন….

শহুরে নান্দনিকতা Urban aesthetics আর বড়োলোকি ফিল্ম স্টাইলের এর গুষ্টি…দিয়ে একটা অসাধারণ নির্মাণ। স্যালুট টু ফিল্ম মেকার অ্যান্ড পুরো টিম। রেদওয়ান রনি, (চরকির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা) তোর প্রতি জাতি কৃতজ্ঞ থাকবে। আমার পক্ষ থেকে পরিচালককে সালাম দিস।

এমন গুনি ব্যক্তিদের নিকট থেকে এমন পজিটিভ রেসপন্স পাওয়াটা অনেক কষ্টসাধ্য হলেও,সেটাকে খুব সহজ করে উপস্থাপন করে পর্যাপ্ত প্রশংসা কুরিয়ে নিয়েছেন নির্মাতা
“তারিকুল ইসলাম শাওকি”

তো এখনো যারা দেখেন নি,আজই দেখে নিন।
বোরিং হওয়ার চান্স নেই এটা শতভাগ গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি।

Share

Post comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Go Top